শুক্রবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০২:৪০ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
এক বিন্দু অক্সিজেন মানুষকে বাঁচাবে, এক টুকরো স্বপ্ন শিশুকে বাঁচাবে ! শৈশব পেড়িয়ে কৈশোর দেখিনি, কালকে আমার বিয়ে! শোকের মাসে জবি সাংবাদিকদের নির্বাচন, গঠনতন্ত্র বহির্ভূত কার্যক্রমে ফলাফল স্থগিত বামনায় সাংবাদিকদের মাঝে কেন্দ্রীয় যুবলীগ নেতার করোনা সুরক্ষা সামগ্রী বিতরণ চরাঞ্চল ঘুরে করোনা টিকার ফ্রি নিবন্ধন করাচ্ছেন ইউপি চেয়ারম্যান চরফ্যাশনে যুবককে ফাঁসাতে গিয়ে পুলিশ অবরুদ্ধ তৃতীয় দিনেও বিশ্ববিদ্যালয়ের বাসে বাড়ি ফিরেছে জবি শিক্ষার্থীরা “সেরা রাঁধুনীতে ফাষ্ট রানার্স আপ নাদিয়া নাতাশা” ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অধিভুক্ত সাত কলেজের ভর্তি পরীক্ষা অক্টোবরে করোনা মোকাবিলায় মোদির মন্ত্রিসভায় রদবদল, শপথ নিলেন ৪৩ মন্ত্রী

শাহীন আহমেদের নিরলস পরিশ্রমে অবহেলিত কেরানীগঞ্জ এখন আলোর বাতিঘর

আলোরদেশ ডেস্ক
  • প্রকাশিত হয়েছেঃ বুধবার, ২ ডিসেম্বর, ২০২০
  • ৩০৫ বার পড়া হয়েছে

রাজধানীর পাশের উপজেলা কেরানীগঞ্জ। উন্নয়নবঞ্চিত ও অবহেলিত এ এলাকাকে স্থানীয়রা একসময় বলত, ‘বাতির নিচে অন্ধকার।’ তবে সে চিত্র আজ আর নেই। অবহেলিত কেরানীগঞ্জ এখন আলোর বাতিঘর। একসময় এ এলাকা ছিল অপরাধীদের অভয়ারণ্য; সেখানে এখন মানুষ শান্তি ও স্বস্তিতে বসবাস করছে।

কেরানীগঞ্জে নৌবন্দর, অর্থনৈতিক অঞ্চল, বিসিএস প্রশিক্ষণ একাডেমি, ইসলামী আরবি বিশ্ববিদ্যালয়, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের নতুন ক্যাম্পাস হচ্ছে। আধুনিকতার পাশাপাশি শান্তি-স্বস্তিতে বাস করছে এ এলাকার মানুষ। এর পেছনে যার অহর্নিশ পরিশ্রম তিনি উপজেলা চেয়ারম্যান শাহীন আহমেদ। কাজের স্বীকৃতির অংশ হিসেবে টানা দুবার দেশসেরা উপজেলা চেয়ারম্যানের সনদ উঠেছে তার হাতে। সুন্দর পরিবেশ গঠনেও ভূমিকা রাখছেন তিনি। শুভাঢ্যা খাল উদ্ধার করে নৌপথ সচল করার চেষ্টা করছেন। দখল হয়ে যাওয়া আরও খাল উদ্ধারের কাজ চলমান রয়েছে। তার নেতৃত্বে কেরানীগঞ্জে চলছে ‘গ্রীন অ্যান্ড ক্লিন কেরানীগঞ্জ’ কর্মসূচি।

১৯৭২ সালের ১০ আগস্ট কেরানীগঞ্জ উপজেলার বাঘৈর কাপাটিয়া হাটি এলাকায় মুক্তিযোদ্ধা পরিবারে জন্ম শাহীন আহমেদের। বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে ভালোবেসে ছাত্রজীবনেই রাজনীতিতে পদার্পণ। ১৯৯৩ সালে কেরানীগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের সহসভাপতি নির্বাচিত হন। পরে হন উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক, উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক। বর্তমানে কেরানীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক। ২০০৮ থেকে টানা তিনবার কেরানীগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। সময়ের আলোর সঙ্গে একান্ত আলাপকালে অবহেলিত কেরানীগঞ্জকে আধুনিক ও আলোকিত হিসেবে গড়ে তোলার বিভিন্ন বিষয় নিয়ে কথা বলেন কেরানীগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক শাহীন আহমেদ।

কেরানীগঞ্জের উন্নয়নের রহস্যটা কী? এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, কেরানীগঞ্জ উপজেলা হচ্ছে রাজধানীর সবচেয়ে পাশর্^বর্তী উপজেলা। অথচ বিগত বিএনপি জোট সরকারের আমলে আমাদের উপজেলায় কোনো উন্নয়নের ছোঁয়া লাগেনি। এ কারণেই একসময় কেরানীগঞ্জকে বলা হতো বাতির নিচে অন্ধকার। আমরা সে ধারণাকে পাল্টে দিয়েছি। আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় আসার পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার স্বপ্ন বাস্তবায়নে আমরা নিরলসভাবে পরিশ্রম করে চলেছি। ঢাকা-৩ আসনের সংসদ সদস্য বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপুর নির্দেশনায় আমরা কেরানীগঞ্জকে সারা দেশে উন্নয়নের রোল মডেল হিসেবে দাঁড় করাতে পেরেছি। কেরানীগঞ্জ এখন আর বাতির নিচে অন্ধকার নয়, বরং কেরানীগঞ্জ এখন আলোর বাতিঘর। আমি একসময়ের অবহেলিত কেরানীগঞ্জের মাটি ও মানুষের উন্নয়নের ব্রত নিয়েই রাজনীতিতে এসেছি, যতদিন বেঁচে আছি ততদিন এই ব্রত পালন করব।

উপজেলার উন্নয়নের বিষয়ে তিনি আরও বলেন, কেরানীগঞ্জের কী উন্নয়ন হয়নি? যে কেরানীগঞ্জে কোনো সরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ছিল না, সে কেরানীগঞ্জে এখন সরকারি স্কুল ও কলেজ দুটোই আছে। উপজেলার প্রায় ৫০ কিলোমিটার মাটির রাস্তা যানবাহন চলাচলের উপযোগী করা হয়েছে। ৬০টি সেতু-কালভার্ট নির্মাণ করা হয়েছে। কেরানীগঞ্জের প্রতিটি রাস্তায় প্রায় ১৮ শতাধিক সোলার স্ট্রিট লাইট স্থাপন করা হয়েছে। প্রায় তিন কোটি টাকা ব্যয়ে একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বন্যা আশ্রয়ণকেন্দ্র কাম স্কুল ভবন নির্মাণকাজ চলছে। উপজেলার প্রায় প্রতিটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের বর্ধিত ভবন করা হয়েছে।
তিনি আরও বলেন, আমাদের উপজেলার পানগাঁও আইসিটি পোর্ট চালু হয়েছে। কেন্দ্রীয় কারাগার স্থাপিত হয়েছে। জগন্নাথ বিশ^বিদ্যালয় ক্যাম্পাস কেরানীগঞ্জে স্থানান্তরিত হচ্ছে। এ ছাড়াও অর্থনৈতিক অঞ্চল, ইসলামী আরবি বিশ^বিদ্যালয় ও বিসিএস প্রশিক্ষণ একাডেমি হচ্ছে কেরানীগঞ্জে। এ ছাড়া ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কের উন্নয়নের ছোঁয়াও লেগেছে কেরানীগঞ্জে। রাস্তাঘাট ও ভৌত অবকাঠামোগত ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে আমাদের এলাকায়। কেরানীগঞ্জের বর্জ্য ব্যবস্থাপনা উন্নয়নে ‘গ্রীন অ্যান্ড ক্লিন কেরানীগঞ্জ’ প্রকল্প চালু করা হয়েছে। শুভাঢ্যা খাল উদ্ধার করে নৌপথ সচল করার চেষ্টা করছি। এ ছাড়াও দখল হয়ে যাওয়া আরও খাল উদ্ধারের কাজ চলমান রয়েছে।

নিজের সারা জাগানো মিড ডে মিল সম্পর্কে তিনি বলেন, আমাদের বেসরকারি উদ্যোগে বাস্তবায়িত কেরানীগঞ্জের প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোতে ‘মিড ডে মিল’ প্রকল্প সারা দেশে মডেল হিসেবে দাঁড়িয়েছে। বর্তমানে উপজেলার মোট ১৩০টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মধ্যে অপেক্ষাকৃত দরিদ্র অঞ্চল বিবেচনায় ২১টি বিদ্যালয়ে এ প্রকল্প চালু আছে। ধারাবাহিকভাবে সব বিদ্যালয়ে এ প্রকল্প চালু হবে। করোনার এই মহামারিকালে প্রতিমন্ত্রী বিপু ভাইয়ের নির্দেশে ব্যক্তিগত উদ্যোগে প্রায় পাঁচ লাখের বেশি মানুষকে ত্রাণ দেওয়া হয়েছে। ত্রাণ সুবিধা পেয়েছে প্রায় এক লাখের বেশি পরিবার।

উন্নয়নে নেতৃত্ব দেওয়ার পাশাপাশি দলকে সুসংগঠিত রেখেছেন শাহীন আহমেদ। আওয়ামী লীগের স্থানীয় নেতাকর্মীরা জানান, শাহীন আহমেদ সবসময় তৃণমূল নেতাকর্মীদের মূল্যায়ন করেন, তাদের বুকে আগলে রাখেন। তার বলিষ্ঠ নেতৃত্বে উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের মধ্যে কোনো কোন্দল নেই, কোনো গ্রুপিং নেই। ২০০১ সালে বিএনপি-জামায়াতের তাণ্ডবে যখন কেরানীগঞ্জ আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা বিচ্ছিন্ন তখন শাহীন আহমেদ দলীয় নেতাকর্মীদের সাহস জুগিয়েছেন। এ ছাড়া ২০১৩-১৪ সালে ২০ দলীয় জোটের রাজনৈতিক কর্মসূচির নামে নাশকতা সারা দেশে চললেও কেরানীগঞ্জে শাহীন আহমেদের নেতৃত্বের কারণে বিএনপি-জামায়াত মাঠে দাঁড়াতে পারেনি। শাহীন আহমেদের সাংগঠনিক দৃঢ়তায় উপজেলার ১২টি ইউনিয়নেই আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা বিজয়ী হয়েছেন। স্বাধীনতার পর এর আগে এমনটি কখনও হয়নি।

সামাজিক ন্যায়বিচারে বেশি মনোযোগী উপজেলা চেয়ারম্যান শাহীন আহমেদ। যেন এলাকার লোকজনকে হয়রানির শিকার হতে না হয় সে জন্য তৎপর তিনি। এ জন্য কেরানীগঞ্জ থানায় মামলার সংখ্যা ঢাকার অন্য যেকোনো থানার চেয়ে কম। তিনি নিজেই অভিযুক্ত ও বাদীর বক্তব্য শুনে সামাজিক ন্যায়বিচারের ব্যবস্থা করেন। শাহীন আহমেদ বলেন, দরিদ্র লোকজনকে থানায় যেতে দিই না। আইন-আদালতে মধ্যস্বত্বভোগীদের দ্বারা বাদী-বিবাদী উভয়পক্ষই আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়। সে জন্য পঞ্চায়েত কমিটির মাধ্যমে সামাজিক মীমাংসা হয়ে যায়।

শাহীন আহমেদ সম্পর্কে স্থানীয় উপজেলার তারানগর ইউপি চেয়ারম্যান মোশারফ হোসেন ফারুক বলেন, তিনি একজন তরুণ রাজনীতিবিদ। দেশে তার মতো উদীয়মান রাজনীতিবিদের খুবই প্রয়োজন। আমি যতদূর তাকে দেখেছি তার নিজের কোনো ভিশন নেই, প্রধানমন্ত্রীর ভিশন বাস্তবায়ন করার চ্যালেঞ্জ নিয়েই তিনি কাজ করেন।
বাস্তা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হাজী মো. আশকর আলী সময়ের আলোকে বলেন, উপজেলা চেয়ারম্যান শাহীন আহমেদ অত্যন্ত গণমুখী উন্নয়ন কাজ করছেন। তার কাছে সবাই যেতে পারেন। এমনকি তার কাছে গিয়ে কেউ কোনো দিন খালি হাতে ফিরে আসেনি।
ঢাকা জেলা যুবলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আবদুল বারেক বলেন, শাহীন আহমেদের নেতৃত্বেই এখন কেরানীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগ সুসংগঠিত। একসময় বলা হতো কেরানীগঞ্জের মাটি বিএনপির ঘাঁটি, সেই কেরানীগঞ্জকেই এখন আওয়ামী লীগের ঘাঁটিতে রূপান্তরিত করেছেন তিনি। তার নেতৃত্বে তৃণমূলের সর্বস্তরের নেতাকর্মীরা ঐক্যবদ্ধ।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
© 2020 সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত আলোরদেশ লিমিটেড। এই সাইটের কোনো কন্টেন্ট অনুমতি ছাড়া কপি করা বেআইনি।
প্রযুক্তি সহযোগিতায়ঃ UltraHostBD.Com
RtRaselBD