বৃহস্পতিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০২:০০ অপরাহ্ন
শিরোনামঃ
জবিতে লিফট ছিড়ে আটকে যায় শিক্ষার্থীরা সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী আর নেই, রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শোক দ্বিতীয় ক্যাম্পাস প্রকল্পে কেরানীগঞ্জের চেয়ারম্যানের বাধার অভিযোগ, ১০ দাবিতে উত্তাল জবি জবি শিক্ষার্থীর গায়ে পানির ছিটা, লেগুনা মালিককে প্রক্টরের জরিমানা গুম হওয়া বাবাকে ফিরে পাওয়ার আকুতি জবি শিক্ষার্থীর কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সহ-সম্পাদক হলেন জবির নাহিদ মনগড়া সংবাদ প্রচারের অভিযোগে দেশ রুপান্তরকে ছাত্রলীগের আইনি নোটিশ শেখ হাসিনার পদ্মাসেতু; দক্ষিনাঞ্চলবাসীর এবারের ঈদ অনেক নিরাপদ-আনন্দময় : সুভাষ চন্দ্র বানবাসী মানুষের জন্য ১৭২০ টন চাল, আড়াই কোটি টাকা বরাদ্দ ডলারের বিপরীতে আবারও মান কমলো টাকার

দ্বিতীয় ক্যাম্পাস প্রকল্পে কেরানীগঞ্জের চেয়ারম্যানের বাধার অভিযোগ, ১০ দাবিতে উত্তাল জবি

আলোরদেশ ডেস্ক
  • প্রকাশিত হয়েছেঃ রবিবার, ১১ সেপ্টেম্বর, ২০২২
  • ১০ বার পড়া হয়েছে

আকাশ আহম্মেদ, জবি :

 • কেরানীগঞ্জের উপজেলা চেয়ারম্যান শাহীন আহমেদের গ্রেফতার ও সেনাবাহিনীর তত্বাবধানে কাজ পরিচালনাসহ ১০ দফা দাবি
 • ৪৮ ঘন্টার মধ্যে দাবি না মানলে ঢাকা অচলের হুশিয়ারী

কেরানীগঞ্জের তেঘরিয়া ইউনিয়নে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) দ্বিতীয় ক্যাম্পাসের নির্মাণ কাজ দ্রুত বাস্তবায়নের জন্য দশ দফা দাবিতে মানবন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল করেছে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। রবিবার (১১ সেপ্টেম্বর) বেলা ১২টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন সাংস্কৃতিক ও স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন এবং সাধারণ শিক্ষার্থীরা সম্মিলিতভাবে বিভিন্ন স্লোগান সম্বলিত প্ল্যাকার্ড ও ব্যানার হাতে এসব কর্মসূচি পালন করেন।

এসময় শিক্ষার্থীরা কেরানীগঞ্জের উপজেলা চেয়ারম্যান শাহীন আহমেদ নির্মান কাজে বাঁধা দিচ্ছেন বলে অভিযোগ জানিয়ে তাকে গ্রেফতারসহ ১০ দফা দাবি মানতে প্রশাসনকে ৪৮ ঘন্টার আল্টিমেটাম দেন। এবং দাবি না মানলে ঢাকা অচল করাসহ কঠোর কর্মসূচির হুশিয়ারি জানান।

মানববন্ধনে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় আবৃত্তি সংসদের সভাপতি জহির উদ্দিনের সঞ্চালনায় ডিবেটিং সোসাইটির সভাপতি সাইদুল ইসলাম সাইদ বলেন, আমাদের দ্বিতীয় ক্যাম্পাসে কোনো মাফিয়াদের জায়গা হতে দিবোনা। ২০১৮ সাল থেকে আজ চার বছর হলেও এখনো কোনো দৃশ্যমান কাজের অগ্রগতি দেখিনি আমরা। দাবি মানতে আমরা আগামী বুধবার পর্যন্ত আলটিমেটাম দিচ্ছি। না হলে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীদের নিয়ে দুর্বার আন্দোলন গড়ে তুলবো।

নাট্যকলা বিভাগের ১২ তম ব্যাচের সুমাইয়া সুমা বলেন, আমাদের এ ১০ দফা দ্রুত বাস্তবায়ন করতে হবে। না হলে প্রশাসন আবারো ২০১৬ সালের মতো আরেকটা হল আন্দোলন দেখবে। আমরা কেন একটি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী হয়ে অবহেলিত হবো বারবার। এই বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন কি পারেনা কোনো আন্দোলন-সংগ্রাম ছাড়া শিক্ষার্থীদের দাবিগুলো পূরণ করতে। আমরা প্রশাসনকে বলতে চাই আপনারা আমাদের কাতারে চলে আসুন, এখনো সময় আছে নতুবা সময় শেষ হলে শিক্ষার্থীদের হুঙ্কার দেখবেন কিন্তু তখন থামানো যাবে না।

মানববন্ধনে বোটানি বিভাগের ১৩ ব্যাচের শিক্ষার্থী একেএম রাকিব বলেন, কোথাকার কোন পাতি নেতা কি বলছে, না বলছে আমরা সেটা ভাবছি না। আমরা ভাবছি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন কেন চুপ করে বসে আছে এতদিনে। আমাদের প্রশাসন হয়তো তাদের মৌন সম্মতি দিচ্ছি নতুবা লুতুপুতু করছে একটা পক্ষের সাথে। এ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসন একটা ভেজা বিড়াল তাদের হাইস্কুলে পাঠানো উচিত। তাদের কোনো যোগ্যতা নেই এখানে থাকার। আমাদের মাঠ চলে গেছে, হল চলে গেছে, এখন নতুন ক্যাম্পাসে একইভাবে যাত্রা শুরু করেছে

এদিকে মানববন্ধন শেষে বিক্ষোভ মিছিলে নানা স্লোগানে (জবিয়ান একপ্রাণ ভূমিদস্যুরা সাবধান, ভূমি দস্যুদের বিরুদ্ধে ডাইরেক্ট একশন, শাহিনের দুই গালে জুতা মারো তালে তালে, শাহিনের চামড়া তুলে নেব আমরা) উত্তাল হয়ে ওঠে ক্যাম্পাস। বিভিন্ন সাংস্কৃতিক ও স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের সদস্যদের সাথে প্রায় ৩ শতাধিক শিক্ষার্থী এ কর্মসূচিতে অংশ নেন। মানববন্ধন শেষে শিক্ষার্থীরা বিক্ষোভ মিছিল বের করে পুরো ক্যাম্পাস প্রদিক্ষণ করে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটক থেকে শাঁখারি বাজার মোড়, বাহাদুর শাহ পার্ক ঘুরে ক্যাম্পাসের শান্ত চত্ত্বরে এসে মিছিল শেষ করে। এসময় সদরঘাটগামী রাস্তায় যানজট সৃষ্টি হয়। কর্মসূচিতে শিক্ষার্থীরা ১০ দফা দাবি জানান। ৪৮ ঘন্টায় দাবি না মানলে ঢাকা অচল করাসহ কঠিন কর্মসূচির হুশিয়ারি দেন।

১০ দফা দাবি :
১.অধিকতর উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় দ্রুততম সময়ে দ্বিতীয় ক্যাম্পাস নির্মাণ প্রকল্প বাস্তবায়ন।
২. সেনাবাহিনীর তত্ত্বাবধানে কাজ দেওয়া।
৩. কেরানীগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শাহিন আহমেদকে গ্রেফতার করতে হবে।
৪. নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা,
৫. প্রথমে হলগুলোর কাজ সম্পন্ন করা
৬. লেকের টেন্ডারের সুষ্ঠু তদন্ত করতে হবে।
৭. ভূমি জরিপের মাধ্যমে পূর্ণাঙ্গ ২০০ একর জমি নিশ্চিত করা।
৮. প্রকল্পে ছাত্র প্রতিনিধি যুক্ত করা বা শিক্ষার্থীদের কাছে প্রকল্পের সকল তথ্যের স্বচ্ছতা নিশ্চিত করতে হবে।
৯. দ্রুত পানি ও বিদ্যুৎ সরবরাহের ব্যবস্থা করতে হবে।
১০. বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় অনুষ্ঠান নতুন ক্যাম্পাস তথা ২য় ক্যাম্পাসে করার ব্যবস্থা করতে হবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
© 2020 সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত আলোরদেশ লিমিটেড। এই সাইটের কোনো কন্টেন্ট অনুমতি ছাড়া কপি করা বেআইনি।
প্রযুক্তি সহযোগিতায়ঃ UltraHostBD.Com
RtRaselBD