বুধবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৫:৫৯ অপরাহ্ন
শিরোনামঃ
এক বিন্দু অক্সিজেন মানুষকে বাঁচাবে, এক টুকরো স্বপ্ন শিশুকে বাঁচাবে ! শৈশব পেড়িয়ে কৈশোর দেখিনি, কালকে আমার বিয়ে! শোকের মাসে জবি সাংবাদিকদের নির্বাচন, গঠনতন্ত্র বহির্ভূত কার্যক্রমে ফলাফল স্থগিত বামনায় সাংবাদিকদের মাঝে কেন্দ্রীয় যুবলীগ নেতার করোনা সুরক্ষা সামগ্রী বিতরণ চরাঞ্চল ঘুরে করোনা টিকার ফ্রি নিবন্ধন করাচ্ছেন ইউপি চেয়ারম্যান চরফ্যাশনে যুবককে ফাঁসাতে গিয়ে পুলিশ অবরুদ্ধ তৃতীয় দিনেও বিশ্ববিদ্যালয়ের বাসে বাড়ি ফিরেছে জবি শিক্ষার্থীরা “সেরা রাঁধুনীতে ফাষ্ট রানার্স আপ নাদিয়া নাতাশা” ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অধিভুক্ত সাত কলেজের ভর্তি পরীক্ষা অক্টোবরে করোনা মোকাবিলায় মোদির মন্ত্রিসভায় রদবদল, শপথ নিলেন ৪৩ মন্ত্রী

চলুন না, সবাই মিলে সমাজটাকে বদলে দিই

আলোরদেশ ডেস্ক
  • প্রকাশিত হয়েছেঃ বুধবার, ২১ আগস্ট, ২০১৯
  • ২৪৪ বার পড়া হয়েছে

আলোর দেশ :

আমাদের সমাজটা ভদ্রবেশী শয়তান আর সভ্য বেশি নিমাই এ ভরে গেছে। এত বেশি পচন ধরে গেছে সমাজ টাতে যে বাঁচার কায়দা নেই। পুলা বুড়া ছোট-বড় আবাল-বৃদ্ধ-বনিতা কমবেশি সবাই এর শিকার। এমন একটা মানুষ খুঁজে পাবেন না যার এমন কোন না কোন একটা তিক্ত অভিজ্ঞতা নেই। চারিদিকে যেন শুধুই ভন্ড লোকের সমাবেশ। নষ্টামি আর ভ্রষ্টামীতে সয়লাব আজ গোটা সমাজ। চারিদিকে কিসের যেন হাহাকার !কোথায় যেন একটা শুন্যতা কাজ করছে সবার মাঝে ! কি যেনো নেই ,কি যেনো নেই ! কি যে ভীষণ অস্থিরতা! হাহাকারের এ দেয়াল ভাঙবে কে?

সবচেয়ে বেশি খারাপ লাগে, সবচেয়ে বেশি কষ্ট লাগে যখন দেখি ভদ্রবেশী লোকগুলা ভিতরে শয়তানিতে ভরপুর । ভদ্রতার লেবাস ধারীলোক গুলোই আজ বেশি শয়তান। কথায় বলে বজ্জ্বাতের কথা সুন্দর, ইতরের হাসি সুন্দর।

আসলেই এ কথা মাঝে মাঝে সত্য যে যখন সুন্দর চেহারা বিশিষ্ট মানুষগুলোর মুখে এক আর অন্তরে আরেক, মুখে মধু অন্তরে বিষ, সুন্দর সুন্দর কথা বলে অথচ অশ্লীল নোংরা কাজ গুলো করে বেড়ায়, বড় বড় নৈতিকতার বুলি আওড়ায়, অথচ পর্দার বা বলে তাওয়াই কবে মস্ত বড় অপরাধ, তা ভাই সম্প্রীত থাকে পৃথিবীর সকল অঘটন গুলোর সাথে তারাই ঘটায় যত সব অনিয়ম আর উশৃংখলতা, তখন সত্যি মনে হয় বজ্জাতের কথা সুন্দর আর ইতরের হাসি সুন্দর। মাঝে মাঝে এ ধরনের কতিপয় খারাপ লোক সমস্ত জনগোষ্ঠী রি প্রেজেন্ট করে, এদের কারণে সাধারন মানুষগুলো পর্যন্ত দোষে দুষ্ট হয়।

সমাজে বিশ্বাসযোগ্যতাহীন, গ্রহণযোগ্যতাহীন ও আস্থাহীন হয়ে পড়ে।মানুষের প্রতি মানুষ বিশ্বাস হারিয়ে ফেলেছে এই সব ঘটনার কারণেই।ভদ্রবেশী শয়তান দের ভন্ডামি আর শয়তানি যে কত দেখেছি জীবনে তার কোন হিসাব নেই। এতদসত্ত্বেও এই মানুষগুলোর সাথে চলছি আমি ,আমরা প্রতিদিন হর হামেশা ।কারণ উপায় নেই তাদেরকে এভয়েড করা,আমাদের চারপাশে ঘিরে রেখেছে তারা। তারা সঙ্ঘবদ্ধ, তাদের চক্র অনেক বেশি শক্তিশালী ও মজবুত।

আত্মীয়-স্বজন বন্ধু-বান্ধব সহকর্মী ছোট বড় কিংবা পিয়ার গ্রুপ তাদের মাঝেও মাঝে মাঝে পাওয়া যায় এ সমস্ত ভদ্রবেশী ভন্ড ও শয়তান ও ভদ্রবেশী নিমাই। আরে এরাই সমাজের কীট ।কুট কুট করে কুঁড়ে কুঁড়ে খাচ্ছে সমাজটাকে। কখনো কখনো তারাই হয় সমাজপতি, কখনো কখনো তারাই গড়ে তোলে সমাজের সংহতি।

দুস্থ অসহায় মানুষকে সাহায্যের নাম করে সাহায্যের ভণিতা করা তাদেরকে মিস ইউজ করা,নারীদের প্রতি ভালোবাসা সহানুভূতি, সহমর্মিতা প্রদর্শনের নামে নারীর শ্লীলতাহানি করা, অবলা শিশুদের প্রতি ভালবাসা সহানুভূতি ও সহমর্মিতা প্রদর্শনের নামে শিশুদের দ্বারা বিপদজনক কাজ করানো যা তাদের জীবনের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ, সামান্য একটু ব্যক্তিগত পারিবারিক স্বার্থ হাসিলের উদ্দেশ্যে একটি শিশুর জীবনের কথা না ভেবে তাকে দিয়ে অবর্ণনীয় ভাবে মারাত্মক ঝুঁকিপূর্ণ কাজ করানো ও নির্মমভাবে কষ্ট দেয়া- এগুলো এই সমস্ত নির্দয় নিষ্প্রাণ মানুষের কাজ। আর এই মানুষগুলোই হয় সমাজে নন্দিত ।অথচ যারা প্রতিবাদ করে ,যারা হাল ধরে, যারা পাশে এসে দাঁড়ায়, তারাই হয় নিন্দিত। কি অদ্ভুত এই সমাজটা ! এ সমাজে পরতে, পরতে এখন ভরে গেছে ভন্ড লোকের জমজমাট মজমা। কোথায় গেলো সে শান্তির সমাজ কোথায় গেলো সে শৃঙ্খলার সমাজ ?কোথায় গেলো সে বিশ্বাস আর ভালবাসার সমাজ ? কোথায় গেলো সে দরদ মিশ্রিত দেশ প্রেম?


তবে কি সব শেষ ? এ সমাজ টা কী একদম ধ্বংস হয়ে গেল ? অতল গহবর এ চলে গেল ? ধ্বংসের এক কৃষ্ণ গহবরে প্রবেশ করলো আমাদের এই সমাজ ।নাকি ফিরে আসার কোন সুযোগ আছে? নাকি ফিরবে একদিন সে শান্তিময় জীবন ? ফিরবে কি একদিন হাসি খেলার সুন্দর সে জীবন?

হে তরুণ বৃদ্ধ হে শিশু-কিশোর যুবক-যুবতী এসো আমরা সমাজটাকে বদলে দেই ।আমরা অন্তত বুকে হাত রেখে প্রমিস্ করি আমরা একে অন্যের সাথে ভন্ডামি করব না, আমরা বিশ্বাসের মর্যাদা ভাঙবো না, আমরা প্রতারণা করবো না ,আমরা মিথ্যা বলব না ,আমরা অবিশ্বাস এর কাজ করব না ,আমরা কোন বিশ্বাস ভাঙ্গার কাজ করবো না ,আমরা ক্ষুদ্র ও সামান্য স্বার্থে অন্যের ক্ষতি করব না, আমরা ঈর্ষান্বিত হয়ে অন্যের ক্ষতি করব না। চলুন আমরা সমাজটাকে ফিরিয়ে নিয়ে আসি সেই সুন্দর দৃশ্যপটের ও দিকে, যেখানে থাকবে না কোন ভন্ডামি, যেখানে থাকবে না কোন শয়তানি যেখানে মানুষ মানুষকে বিশ্বাস করবে ,যেখানে মানুষের বিপদে মানুষ পাশে দাঁড়াবে ,যেখানে মানুষ মানুষের জন্য সেক্রিফাইস করবে ,যেখানে মানুষ নিজের স্বার্থ ছেড়ে দিয়ে অন্যের উপকার করবে। চলুন না- টূগেদার উই বিল্ড আউয়ার সোসাইটি।

লেখক : মোঃ সাইফুল ইসলাম মাসূম, ব্যাংকার, কলামিস্ট ও বিশ্লেষক

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
© 2020 সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত আলোরদেশ লিমিটেড। এই সাইটের কোনো কন্টেন্ট অনুমতি ছাড়া কপি করা বেআইনি।
প্রযুক্তি সহযোগিতায়ঃ UltraHostBD.Com
RtRaselBD