বুধবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১০:২৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
এক বিন্দু অক্সিজেন মানুষকে বাঁচাবে, এক টুকরো স্বপ্ন শিশুকে বাঁচাবে ! শৈশব পেড়িয়ে কৈশোর দেখিনি, কালকে আমার বিয়ে! শোকের মাসে জবি সাংবাদিকদের নির্বাচন, গঠনতন্ত্র বহির্ভূত কার্যক্রমে ফলাফল স্থগিত বামনায় সাংবাদিকদের মাঝে কেন্দ্রীয় যুবলীগ নেতার করোনা সুরক্ষা সামগ্রী বিতরণ চরাঞ্চল ঘুরে করোনা টিকার ফ্রি নিবন্ধন করাচ্ছেন ইউপি চেয়ারম্যান চরফ্যাশনে যুবককে ফাঁসাতে গিয়ে পুলিশ অবরুদ্ধ তৃতীয় দিনেও বিশ্ববিদ্যালয়ের বাসে বাড়ি ফিরেছে জবি শিক্ষার্থীরা “সেরা রাঁধুনীতে ফাষ্ট রানার্স আপ নাদিয়া নাতাশা” ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অধিভুক্ত সাত কলেজের ভর্তি পরীক্ষা অক্টোবরে করোনা মোকাবিলায় মোদির মন্ত্রিসভায় রদবদল, শপথ নিলেন ৪৩ মন্ত্রী

চরফ্যাশনে যুবককে ফাঁসাতে গিয়ে পুলিশ অবরুদ্ধ

আলোরদেশ ডেস্ক
  • প্রকাশিত হয়েছেঃ সোমবার, ১৯ জুলাই, ২০২১
  • ২৮ বার পড়া হয়েছে

চরফ্যাশন সংবাদদাতা

চরফ্যাসনের মাদ্রাজ ইউনিয়নে আল আমিন নামে এক যুবককে মাদক দিয়ে ফাঁসাতে গিয়ে জনতার হাতে অবরুদ্ধ হয়েছেন চরফ্যাসন থানার উপ-পরিদর্শক সিদ্দিকুর রহমান। খবর পেয়ে চরফ্যাসন থানার ওসি মো. মনির হোসেন মিয়া ঘটনাস্থলে গিয়ে অবরুদ্ধ ওই পুলিশ সদস্যসহ অপরদের উদ্ধার করেন।  শনিবার বিকালে চরমাদ্রাজ ইউনিয়নের নতুন সুলিজ এলাকায় মৎস্য ঘাটে এঘটনা ঘটে।
যুবক আলামিন জানান, নতুন  সুলিজ মৎস্যঘটে শনিবার বিকালে তিনি তার বাবার মালিকানাধীন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান আইমা ফিসে যান। ওই সময় চরফ্যাসন থানার উপ-পরিদর্শক সিদ্দিকুর রহমানসহ কয়েকজন পুলিশ সদস্য আড়ৎ থেকে তাকে আটক করে হাতকড়া পড়িয়ে থানায় আনার চেষ্টা করেন। আল আমিন তাকে আটকের কারন জনাতে চাইলে তার সঙ্গে মাদক আছে বলে জানান এসআই সিদ্দিকুর রহমন। এসময় তিনি কৌশলে তার প্যান্টের পকেটে মাদক দেয়ার চেষ্টা করেন। মাদক দেয়ার চেষ্টায় ব্যর্থ হয়ে তার বাবার মৎস্য আড়ৎ থেকে ৫ লাখ টাকা ও তার ব্যবহারিত ৬৪ হাজার টাকা দামের মোবাইল ফোন ছিনিয়ে নিয়ে যান বলেও জানান আল আমিন। আলামিনের চাচা ওমর ফারুক বাবুল মিয়া জানান,  আড়তে হঠাৎ পুলিশ হানা দিয়ে সাথে মাদক আছে বলে আলামিনকে আটক করেন। কিন্তু স্থানীয়দের সামনে তল্লাশী করে সাথে কোন মাদক পাওয়া যায়নি। পরে তাকে ছেড়ে দিলেও স্থানীয় ব্যবসায়ীরা ওই সময় চরফ্যাসন থানার উপ-পরিদর্শক সিদ্দিকুর রহমানসহ কয়েকজন পুলিশ সদস্যকে অবরুদ্ধ করে রাখেন। পরে চরফ্যাসন থানার ওসি  ঘটনাস্থলে গিয়ে ওই পুলিশ সদস্যদের উদ্ধার করে  নিয়ে যান এবং তার পরিবারকে দেখে নেয়ার হুমকি দেন।
স্থানীয়-ব্যবসায়ীরা নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, প্রায় রাতেই  এসআই সিদ্দিকুর রহমানসহ কিছু পুলিশ সদস্য ওই মৎস্যঘটে হানা দেন । এবং সাধারন ব্যবসায়ী,জেলে এবং যুবকদের মাদক মামলার ভয় দেখিয়ে অর্থ হাতিয়ে নেন। টাকা না দিলে আটক করে থানায় নিয়ে বিভিন্ন মামলায় জড়িয়ে হয়রানী করেন।
উপ-পরিদর্শক সিদ্দিকুর রহমান  মাদক দিয়ে ফাঁসানো অভিযোগ সঠিক নয় দাবী করে জানান, ওই যুবকের কাছে মাদক আছে এমন সংবাদের ভিত্তি অভিযান চালিয়ে তাকে  আটক করলে স্থানীয়রা তাকে ছিনিয়ে নেয়,এজন্য  তল্লাশী করতে পারিনি। বিক্ষুব্ধ জনতা ঘিরে ধরলে পরিস্থিতি খারাপ দেখে আমার চলে আসি।
চরফ্যাসন থানার ওসি মো. মনির হোসেন মিয়া জানান, ওই যুবকের কাছে মাদক আছে এমন সংবাদের ভিত্তিতে থানা পুলিশ মাদক অভিযানে যায়। স্থানীয়রা পুলিশকে ঘিরে ফেললে আল আমিন তার সাথে থাকা মাদক ফেলে দেয়। এজন্যই তার কাছে  মাদক পাওয়া যায়নি।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
© 2020 সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত আলোরদেশ লিমিটেড। এই সাইটের কোনো কন্টেন্ট অনুমতি ছাড়া কপি করা বেআইনি।
প্রযুক্তি সহযোগিতায়ঃ UltraHostBD.Com
RtRaselBD